মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৬:২৩ অপরাহ্ন

সর্বশেষ শিরোনাম :
কুলাউড়ায় কিশোরীর আত্মহত্যা তাহিরপুরের হত্যা মামলার আসামি ভৈরব থেকে গ্রেপ্তার দোয়ারাবাজারে ফসলি জমিতে বিষ দিয়ে হাস-মুরগ হত্যা দোয়ারাবাজারে চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষণের চেষ্টা জবানবন্দি দিতে রাজী না হওয়ায় আরও ৩ দিনের রিমান্ডে কনস্টেবল টিটু স্বামী-সন্তান ছেড়ে যুবকের সঙ্গে পালানোর পর রাস্তায় গৃহবধূর লাশ, প্রেমিক আটক স্বাস্থ্যবিধি মেনে পূজার আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নেয়ার আহবান মেয়র আরিফের ছেলে হত্যাকারীদের গ্রেপ্তারের দাবিতে পুলিশ ফাঁড়ির সামনে মা’র অনশন রায়হান হত্যাকারীদের শাস্তির দাবিতে মানববন্ধন উপজেলা আওয়ামীলীগের আহবায়ক ফরিদ আহমেদ তারেক এর নেতৃত্বে পূজামণ্ডপ পরিদর্শন
সিলেটের এমসি কলেজ হোস্টেলে গণধর্ষণের ঘটনায় ৪ ধর্ষক গ্রেপ্তার

সিলেটের এমসি কলেজ হোস্টেলে গণধর্ষণের ঘটনায় ৪ ধর্ষক গ্রেপ্তার

সিলেট ইউকে নিউজ: সিলেটের এমসি কলেজ হোস্টেলে স্বামীকে বেঁধে রেখে তার স্ত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় দায়েরকৃত মামলায় ৪ ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব ও পুলিশ। রবিবার ভোরে ও রাতে হবিগঞ্জ ও সুনামগঞ্জ জেলার বিভিন্নস্থানে পৃথক অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়। র‌্যাব ও পুলিশের পৃথক সূত্র বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।
এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে গণধর্ষণকারী এবং তাদের আশ্রয় প্রশ্রয়দাতাদের দ্রুত গ্রেফতার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে জেলা ও মহানগর ছাত্রলীগ, যুবলীগের মানববন্ধন ও কালো পতাকা প্রদর্শন।

গ্রেপ্তারকৃতরা হল, সিলেটের বালাগঞ্জ উপজেলার চান্দাইপাড়া গ্রামের তাহিদ মিয়ার পুত্র এম সাইফুর রহমান (২৮), জকিগঞ্জ উপজেলার আটগ্রামের কানু লস্করের পুত্র অর্জুন লস্কর (৩০), হবিগঞ্জ সদরের বাগুনীপাড়ার মো. জাহাঙ্গীর মিয়ার পুত্র শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনি (২৫) ও সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই উপজেলার বড়নগদীপুর (জগদল) গ্রামের বাসিন্দা রবিউল ইসলাম (২৫)। গ্রেপ্তারকৃতরা সবাই রাজনীতির সাথে জড়িত। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে ধর্ষক এম সাইফুর রহমান ও অর্জুন লস্করকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদ করা হলে তারা পুলিশের কাছে ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেয়। এর পর পুলিশ রবিবার দুপুরে তাদেরকে সংশ্লিষ্ট আদালতে হাজির করলে আদালত তাদেরকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।
সূত্র জানায়, রবিবার রাতে হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জ থেকে শাহ মো. মাহবুবুর রহমান রনিকে র‌্যাবের একটি দল গ্রেফতার করে। অন্যদিকে নবীগঞ্জ উপজেলা থেকে রবিউল ইসলামকে (২৫) গ্রেপ্তার করে হবিগঞ্জ জেলা পুলিশ। এর আগে গতকাল রবিবার ভোরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলা সীমান্তবর্তী খেয়াঘাট এলাকায় অভিযান চালিয়ে নারী নির্যাতন ও অস্ত্রসহ দু’টি মামলার প্রধান আসামী এম সাইফুর রহমানকে গ্রেপ্তার করে ছাতক থানা পুলিশ। অপরদিকে একই দিন সিলেট জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের একটি টিম হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলার মনতলা এলাকায় অভিযান চালিয়ে নারী নির্যাতন মামলার অপর আসামী অর্জুন লস্করকে (৩০) গ্রেপ্তার করে। এর মধ্যে সাইফুর রহমান চুল ও দাঁড়ি কেটে চেহারা পরিবর্তন করেও রক্ষা পায়নি সে। এ ঘটনায় জড়িত তারেক আহমদ ও মাহফুজুর রহমান বর্তমানে পলাতক রয়েছে। তাদেরকে হণ্য হয়ে খোঁজছে আইন শৃংঙ্খলাবাহিনী।
পুলিশ সূত্র জানায়, ধর্ষনের ঘটনার পর পরই জড়িত আসামীরা বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে চলে যায়। সাইফুর রহমান পালিয়ে যায় সুনামগঞ্জের ছাতক ও অর্জুন লস্কর পালিয়ে যায় হবিগঞ্জের মাধবপুরে আর রবিউল ও রনি পলিয়ে যায় হবিগঞ্জ সদর ও নবীগঞ্জে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে তাদের অবস্থান শনাক্ত করে তাদেরকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে। এর মধ্যে গ্রেপ্তারকৃত সাইফুর রহমান ও অর্জুন লস্করকে শাহপরান থানায় হস্তান্তর করা হয়।
এ ব্যাপারে সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মিডিয়া কর্মকর্তা এডিসি জ্যোতির্ময় সরকার বলেন, গণধর্ষণের ঘটনার পর আসামীরা গা ঢাকা দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে তারা রক্ষা পায়নি। ধর্ষণ মামলার অপর আসামীদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে জানিয়ে এডিসি মিডিয়া আরো বলেন, প্রধান আসামী সাইফুর গ্রেপ্তার এড়াতে মুখের দাঁড়ি কেটে ফেলে। সে সীমান্ত পথ ব্যবহার করে ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে ছিলো।

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

সংবাদটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply




© All rights reserved © SYLHETUKNEWS.COM
Design BY Web Home BD
SUKNEWS